সোমবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১১:৩২ পূর্বাহ্ন
নিউজ ফ্লাশ
পঞ্চগড়ে মন্দিরে যাওয়ার পথে নৌকাডুবিতে শিশুসহ ২৪ জনের মৃত্যু হিজাব ইস্যুতে উত্তাল ইরান: নারীসহ ৭০০ বিক্ষোভকারী গ্রেফতার, নিহত ৩৫ শারদীয় দুর্গাপূজা: হিলি ইমিগ্রেশন দিয়ে যাত্রী পারাপার বেড়েছে ফেসবুকে ইসলাম ধর্ম নিয়ে অবমাননাকর মন্তব্য, বেরোবি শিক্ষার্থী আটক আগামী পহেলা ডিসেম্বর বিভাগীয় লেখক পরিষদ রংপুরের এক যুগ পূতি নগরজুড়ে চ্যাম্পিয়নদের ছাদ খোলা বাসে বিজয় শোভাযাত্রা খোলা বাসে বিলবোর্ড মাথায় লেগে আহত ফুটবলার ঋতুপর্ণার মাথায় দুই সেলাই এই ট্রফি আমাদের দেশের জনগণের জন্য রংপুরে জাপানি নাগরিক কুনিও হোশি হত্যা: ৪ জঙ্গির মৃত্যুদণ্ড বহাল দিনাজপুর বোর্ডের এসএসসি পরীক্ষার চার বিষয়ের পরীক্ষা স্থগিত

চেয়ারম্যান-মেম্বাররা শুধু মাপযোগ নিয়ে যায় কিন্তু ব্রিজ হয় না!

প্রতিবেদকের নাম:
  • আপডেট সময় : মঙ্গলবার, ২২ সেপ্টেম্বর, ২০২০

রংপুরের পীরগাছায় ছোট ঝিনিয়া (ধনীর বাজার) সংলগ্ন নদীতে একটি ব্রিজের অভাবে ভোগান্তি পোহাচ্ছে কয়েক হাজার মানুষ। ব্রিজ না থাকায় চরম ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে দুই পাড়ের মানুষকে। নদী পারাপারের জন্য স্থানীয় লোকজন নিজেদের উদ্যোগে সাঁকো তৈরি করলেও তা ভেঙে যায়। আবার নতুন ভাবে সাঁকোটি তৈরি করে কোনো রকম চলাফেরা করছেন ওই এলাকার বাসিন্দারা।

নদীটির এক পাড়ে রয়েছে কিসামত ঝিনিয়া (ধনীর বাজার) উচ্চ বিদ্যালয়, কিসামত ঝিনিয়া দাখিল মাদরাসা ও ছোট ঝিনিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়সহ আরও অনেক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। এসব প্রতিষ্ঠানে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে প্রতিদিনই পারাপার হতে হয় কোমলমতি শিক্ষার্থীদের। বাঁশের সাঁকোটিতে পারাপারের সময় দুলে যাওয়ায়, বড় ধরণের দুর্ঘটনার আশঙ্কা রয়েছে দুই পাড়ের মানুষের। ইতোপূর্বে ওই সাঁকোটিতে পারাপারের সময় অনেকেই দুর্ঘটনার শিকার হয়েছে।

ওই গ্রামের বাসিন্দা ওয়াহেদ আলী বলেন, চেয়ারম্যান-মেম্বারা শুধু মাপযোগ নিয়ে যায় কিন্তু ব্রিজ হয় না। এখানে একটি ব্রিজ হউক। এলাকার লোকজনের এটা দীর্ঘদিনের দাবি। কারণ ওই সাঁকো দিয়ে প্রতিদিনই কয়েক হাজার মানুষ জীবনের ঝুঁকি নিয়ে যাতায়াত করে।

৩নং ইটাকুমারী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. আব্দুল কাদের প্রধান জানান, আমরা ওই সাঁকোতে একটি ব্রিজ করার জন্য মাপযোগ ও কাগজপত্র ইতোমধ্যে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার মাধ্যমে ঢাকায় পাঠিয়েছি।

এ বিষয়ে উপজেলা প্রকৌশলী মো. মনিরুল ইসলামের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, ওই সাঁকোটি আমি দেখেছি। সাঁকোটির মাপযোগ ও কাগজপত্র ঢাকায় পাঠিয়েছি। বরাদ্দ পেলে ব্্িরজের কাজ শুরু করব।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ

এ প্লাস ডিজিকম সার্ভিস

© All rights reserved © 2020 Aplusnews.Live
Design & Development BY Hostitbd.Com

অনুমতি ছাড়া নিউজ কপি দন্ডনীয় অপরাধ। কপি করা যাবে না!!