সোমবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১২:৪৩ অপরাহ্ন
নিউজ ফ্লাশ
পঞ্চগড়ে মন্দিরে যাওয়ার পথে নৌকাডুবিতে শিশুসহ ২৪ জনের মৃত্যু হিজাব ইস্যুতে উত্তাল ইরান: নারীসহ ৭০০ বিক্ষোভকারী গ্রেফতার, নিহত ৩৫ শারদীয় দুর্গাপূজা: হিলি ইমিগ্রেশন দিয়ে যাত্রী পারাপার বেড়েছে ফেসবুকে ইসলাম ধর্ম নিয়ে অবমাননাকর মন্তব্য, বেরোবি শিক্ষার্থী আটক আগামী পহেলা ডিসেম্বর বিভাগীয় লেখক পরিষদ রংপুরের এক যুগ পূতি নগরজুড়ে চ্যাম্পিয়নদের ছাদ খোলা বাসে বিজয় শোভাযাত্রা খোলা বাসে বিলবোর্ড মাথায় লেগে আহত ফুটবলার ঋতুপর্ণার মাথায় দুই সেলাই এই ট্রফি আমাদের দেশের জনগণের জন্য রংপুরে জাপানি নাগরিক কুনিও হোশি হত্যা: ৪ জঙ্গির মৃত্যুদণ্ড বহাল দিনাজপুর বোর্ডের এসএসসি পরীক্ষার চার বিষয়ের পরীক্ষা স্থগিত

দারিদ্রের কাছে হার মেনে ছেলেকে নিজের কিডনি দিতে চান মা,বাধা চিকিৎসা খরচ

এপ্লাস অনলাইন
  • আপডেট সময় : সোমবার, ২২ আগস্ট, ২০২২

সন্তানকে বাঁচাতে কি না করতে পারেন একজন মা! সন্তানের জীবনের কাছে যেখানে নিজের জীবনও তুচ্ছ, সেখানে একটা কিডনি তো নস্যি তার কাছে। কিন্তু এরপরও যদি নাড়ির ধন সন্তানটাকে বাঁচানো না যায়; তাও কেবল টাকার অভাবে, তাহলে সেই মায়ের চেয়ে অসহায় হয়তো আর কেউ নেই। দারিদ্র্যের কাছে হেরে গিয়ে প্রমাণ হয়, ভালোবাসাই কেবল যথেষ্ট নয়, টাকাটাও লাগে!

 

রিফাত হাসান রিপন (২২)। ঠাকুরগাঁওয়ের রানীশংকৈল উপজেলার লেহেম্বা ইউনিয়নের পকম্বা গ্রামে তার বাড়ি। কৈশোরেই হারিয়েছেন বাবাকে। বাবার মৃত্যুর পর অভাবের পরিবারে সংসারের হাল ধরেন মা। ছোটবেলা থেকেই পড়াশোনার প্রতি প্রবল আগ্রহ তার। ছাত্র হিসেবে মেধাবী। এলাকাজুড়ে বেশ সুনাম। সব পরীক্ষায় রেখেছেন কৃতিত্বের স্বাক্ষর। মা-বাবার ইচ্ছে ছিল একমাত্র ছেলেকে উচ্চশিক্ষায় শিক্ষিত করবেন। উচ্চশিক্ষা অর্জন করে দারিদ্র্যকে পরাজিত করার স্বপ্ন নিয়ে প্রত্যন্ত গ্রাম থেকে আসেন রাজশাহী শহরে। উচ্চ মাধ্যমিক শেষে ভর্তি হন রাজশাহী কলেজের পরিসংখ্যান বিভাগে। রিপন এখন সেই কলেজের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী। আর কটা দিন। বাবার মৃত্যুর পর মায়ের কষ্টে ভরা সংগ্রামী জীবনের এই বুঝি অবসান হলো। কিন্তু বিধি বাম। সহপাঠীরা যখন ক্লাসে ব্যস্ত, তখন মৃত্যুর ক্ষণ গুনছেন রিপন। দুটি কিডনিই নষ্ট হয়ে গেছে তার। আশা পূরণ হওয়ার আগেই জীবনে নেমে এসেছে অন্ধকার কালো অধ্যায়।

রিপনের মা রিতা বেগম বলেন, স্বামী মারা যাওয়ার আট বছর হলো। অনেক কষ্ট করে সংসার চালাতে হয়। আমাদের যা ছিল, সবকিছু দিয়ে চিকিৎসা করিয়েছি। চিকিৎসক যত দ্রুত সম্ভব ভারতে গিয়ে কিডনি প্রতিস্থাপন করতে বলেছেন। কিন্তু ভারতে গিয়ে কিডনি প্রতিস্থাপন করতে ২৮ থেকে ৩০ লাখ টাকা খরচ হবে, যা আমার পরিবারের পক্ষে জোগান দেওয়া কোনোভাবেই সম্ভব নয়। আত্মীয়স্বজন, রিফাতের বন্ধুবান্ধব ও প্রতিবেশীরা পাশে দাঁড়িয়েছেন। কিন্তু এ টাকা আমার ছেলের চিকিৎসার জন্য খুবই নগণ্য। এ পরিস্থিতিতে ছেলেকে বাঁচাতে সবার কাছ থেকে সহযোগিতা আশা করছেন অসহায় এই মা। তার আকুতি, ‘আপনারা পাশে দাঁড়ালে, ছেলেকে আমি আমার কিডনি দেব। আমার সন্তানকে বাঁচাতে আপনারা শুধু চিকিৎসার খরচটা দেন।’

 

অসুস্থ রিপন বলেন, বাবার ইচ্ছে ছিল আর মায়ের স্বপ্ন ছিল আমি উচ্চশিক্ষায় শিক্ষিত হব। সেই স্বপ্ন নিয়েই পড়াশোনা করছিলাম। নিজে স্বপ্ন বুনছিলাম বিসিএস ক্যাডার হয়ে দেশের জন্য কিছু করব। এখন সপ্তাহে দুদিন হাসপাতালে না গেলে শ^াসকষ্টের সমস্যা হয়। তবুও স্বপ্ন দেখি বেঁচে থাকার।

রিপনসহ পরিবারের সদস্য ৪ জন। মা-বাবা ও ছোট বোনকে নিয়ে বেশ সুখেই কাটছিল তাদের জীবন। তবে সেই সুখ বেশিদিন স্থায়ী হয়নি তাদের। মাধ্যমিক পাস করতেই বাবা তাদের ছেড়ে পরপারে চলে যান। এরপরে পরিবারে নেমে আসে দুর্দিন। ভিটেমাটি ছাড়া অল্প একটু আবাদি জমির আয়ে কোনোমতে চলে তাদের তিন সদস্যের সংসার।

 

পরিবার সূত্র জানায়, ২০২০ সালের মার্চের দিকে জ্বর, বমি আর মাথাব্যথা দেখা দেয় রিপনের। পরীক্ষা করে জানা যায়, তার দুটি কিডনির কোনোটিই আর কাজ করছে না। রিপনের এ অবস্থায় দিশাহারা মা সহায়-সম্বল বিক্রি করে চিকিৎসা করাতে শুরু করেন। দিনাজপুর, রংপুর, রাজশাহীতে চিকিৎসা শেষে ঢাকা সেন্টার ফর কিডনি ডিজিজেস অ্যান্ড ইউরোলজি হাসপাতালে ভর্তি হন রিপন। সেখানের চিকিৎসক অধ্যাপক কামরুল ইসলাম রিপনকে কিডনি প্রতিস্থাপনের পরামর্শ দেন। এখন তাকে সপ্তাহে দুই দিন ডায়ালাইসিস করাতে হয়। ডায়ালাইসিস না করালে শুরু হয় তার শ^াসকষ্ট।

 

রিফাত হাসান রিপন বর্তমানে ঢাকা সেন্টার ফর কিডনি ডিজিজেস অ্যান্ড ইউরোলজি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। তার চিকিৎসার জন্য সহযোগিতা করতে চাইলে মা রিতা বেগমের সঙ্গে- ০১৭৩১-১০০৪৬৭০ নম্বরে যোগাযোগ করে সহযোগিতা করতে পারবেন। বিকাশ-০১৭৯৩-৯৬৮৯৪৭, রকেট নম্বর ০১৭৯৩-৯৬৮৯৪৭২ (রিপন)। ইসলামী ব্যাংক, রানীশংকৈল শাখা হিসাব নং-২০৫০৪১১০২০০৩২৫৬১০।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ

এ প্লাস ডিজিকম সার্ভিস

© All rights reserved © 2020 Aplusnews.Live
Design & Development BY Hostitbd.Com

অনুমতি ছাড়া নিউজ কপি দন্ডনীয় অপরাধ। কপি করা যাবে না!!