সোমবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০১:১৯ অপরাহ্ন
নিউজ ফ্লাশ
পঞ্চগড়ে মন্দিরে যাওয়ার পথে নৌকাডুবিতে শিশুসহ ২৪ জনের মৃত্যু হিজাব ইস্যুতে উত্তাল ইরান: নারীসহ ৭০০ বিক্ষোভকারী গ্রেফতার, নিহত ৩৫ শারদীয় দুর্গাপূজা: হিলি ইমিগ্রেশন দিয়ে যাত্রী পারাপার বেড়েছে ফেসবুকে ইসলাম ধর্ম নিয়ে অবমাননাকর মন্তব্য, বেরোবি শিক্ষার্থী আটক আগামী পহেলা ডিসেম্বর বিভাগীয় লেখক পরিষদ রংপুরের এক যুগ পূতি নগরজুড়ে চ্যাম্পিয়নদের ছাদ খোলা বাসে বিজয় শোভাযাত্রা খোলা বাসে বিলবোর্ড মাথায় লেগে আহত ফুটবলার ঋতুপর্ণার মাথায় দুই সেলাই এই ট্রফি আমাদের দেশের জনগণের জন্য রংপুরে জাপানি নাগরিক কুনিও হোশি হত্যা: ৪ জঙ্গির মৃত্যুদণ্ড বহাল দিনাজপুর বোর্ডের এসএসসি পরীক্ষার চার বিষয়ের পরীক্ষা স্থগিত

নির্বাচন কমিশন ডাকা সংলাপে আগ্রহ কম

এপ্লাস অনলাইন
  • আপডেট সময় : বুধবার, ২৩ মার্চ, ২০২২
আগামী দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের রোডম্যাপ তৈরির লক্ষ্যে বুদ্ধিজীবী, শিক্ষাবিদ ও সুশীল সমাজসহ বিভিন্ন মহলের সঙ্গে সংলাপের আয়োজন করছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। তবে শুরু থেকেই গাছাড়া এ সংলাপ। আমন্ত্রিতদের অনেকেরই আগ্রহ নেই ইসির ডাকা সংলাপে। কেউ কেউ বলছেন, সময়মতো আমন্ত্রণপত্র হাতে না পাওয়ায় তারা ‘আউয়াল কমিশনের’ সংলাপে উপস্থিত হতে পারেননি।
গত ১৩ মার্চ শুরু হয়ে বিভিন্ন মহলের সঙ্গে ধারাবাহিকভাবে চলছে এ সংলাপ। প্রথম সংলাপে দেশের ৩০ শিক্ষাবিদকে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল। আমন্ত্রণে সাড়া দিয়ে ওইদিন উপস্থিত ছিলেন মাত্র ১৩ জন। মঙ্গলবার দ্বিতীয় সংলাপে দেশের ৩৯ জন বিশিষ্ট নাগরিককে আমন্ত্রণ জানায় ইসি। তাদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন মাত্র ১৯ জন, যা দেখে হতাশ আমন্ত্রিতরাই।
গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা, জাফরুল্লাহ চৌধুরী কমিশনের উদ্দেশে বলেন, আমন্ত্রণপত্রের সঙ্গে যদি আমন্ত্রিত ব্যক্তিদের নামের তালিকাটাও পাঠাতেন তা হলে এখানে আসার জন্য আমি দুয়েকজনের সঙ্গে কথা বলতাম। উপস্থিতিটা বাড়ত।
সংলাপে উপস্থিত না থাকা প্রসঙ্গে স্থানীয় সরকার বিশেষজ্ঞ ড. তোফায়েল আহমেদের সঙ্গে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি সময়ের আলোকে বলেন, সংলাপের বিষয়টি আমার জানা নেই। আমন্ত্রণ জানিয়ে আমাকে কেউ ফোন বা মেইল করেনি। ১৬ তারিখ রাত পর্যন্ত আমি ঢাকাতেই ছিলাম, এর মধ্যেও পাইনি। এরপর পূর্বনির্ধারিত কর্মসূচির জন্য রাতে  চট্টগ্রামে চলে এসেছি।
এরপর বাসায় আমন্ত্রণপত্রের কোনো হার্ডকপি পাঠিয়েছে কি না তাও জানি না। আগে জানলে অবশ্যই থাকতাম।
তিনি বলেন, তারা (ইসি) যখন বৈঠকের আয়োজন করেছে তখনই বলেছিলাম সংলাপটি অনেক আগে করা হচ্ছে। এখনই বোধ হয় না করে ইসির একটু প্রস্তুতি নিয়ে আরও পরে করলে তাদের জন্যই ভালো হতো। তারা নিজেদের মধ্যে এবং মাঠ পর্যায়ের লোকজনের সঙ্গে আগে কথা বলবেন। এখন ওখানে যারা কথা বলছেন বা আমি থাকলেও যা বলতাম তা তো অনেক আগে থেকেই বলে আসছি, নতুন কোনো কথা নয়।
সংলাপে উপস্থিত না থাকার কারণ হিসেবে সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন) সম্পাদক ড. বদিউল আলম মজুমদার সময়ের আলোকে বলেন, আমি বর্তমানে খুলনায় একটি প্রোগ্রামে আছি। এটি আমার পূর্বনির্ধারিত কর্মসূচি ছিল। তাই উপস্থিত থাকতে পারিনি।
এদিকে সংলাপে উপস্থিত হয়ে ১৯ বিশিষ্ট নাগরিক নির্বাচন নিয়ে তাদের মতামত ও পরামর্শ তুলে ধরেন। তাদের কেউ কেউ বলেছেন, অতীত অভিজ্ঞতায় দেখা গেছে, দলীয় সরকারের অধীনে সুষ্ঠু নির্বাচন করা সম্ভব নয়। এ ছাড়া জাতীয় নির্বাচনে সবার ঐকমত্য ছাড়া ইভিএম ব্যবহার না করা, ভোটারদের বাধাহীনভাবে ভোটদানের অধিকার নিশ্চিত করা, ভোটের আগে-পরে ভোটারদের বিশেষ করে নারী ও সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা, নির্বাচনকালীন প্রশাসন ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে নির্বাচন কমিশনের নিয়ন্ত্রণে আনার পরামর্শ দেন তারা।
বিশিষ্টজনদের কেউ কেউ বলেন, নির্বাচন কমিশনকে সাহসিকতার সঙ্গে কাজ করতে হবে। কমিশন যদি মনে করে, নির্বাচনকালীন সরকার প্রশ্নে আইন ও সংবিধান সংশোধন প্রয়োজন, তা হলে তারা সরকারকে প্রস্তাব দেবে। আর যদি মনে করে, সুষ্ঠু নির্বাচন করা সম্ভব নয়, তা হলে নির্বাচন কমিশনকে পদত্যাগের মানসিকতা রাখতে হবে।
সংলাপে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা জাফরুল্লাহ চৌধুরী, সিপিডির বিশেষ ফেলো দেবপ্রিয় ভট্টাচার্য, ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি) নির্বাহী পরিচালক ইফতেখারুজ্জামান, সাবেক মন্ত্রিপরিষদ সচিব আলী ইমাম মজুমদার, বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ফরাসউদ্দিন আহমেদ, বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের (ইউজিসি) সাবেক চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম প্রমুখ বক্তব্য তুলে ধরেন।
সংলাপ শেষে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী হাবিবুল আউয়াল বলেন, তারা বিশিষ্টজনদের প্রস্তাব ও পরামর্শ শুনেছেন। এসব পর্যালোচনা করে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নেওয়া হবে।
দায়িত্ব নেওয়ার পর অংশীজনদের সঙ্গে সংলাপ করাটা ইসির এক ধরনের রেওয়াজ। কাজী হাবিবুল আউয়ালের নেতৃত্বাধীন বর্তমান কমিশন দায়িত্ব নেওয়ার মাত্র ১৫ দিনের মাথায় ১৩ মার্চ শিক্ষাবিদদের সঙ্গে প্রথম সংলাপ করে, এরপর মঙ্গলবার বিশিষ্টজনদের সঙ্গে সংলাপ করল ইসি। আগামী ৩০ মার্চ গণমাধ্যমের সঙ্গে সংলাপে বসবে ইসি। এরপর নারীনেত্রী ও দলগুলোর সঙ্গে ধারাবাহিকভাবে বৈঠকে বসবে সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠানটি।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ

এ প্লাস ডিজিকম সার্ভিস

© All rights reserved © 2020 Aplusnews.Live
Design & Development BY Hostitbd.Com

অনুমতি ছাড়া নিউজ কপি দন্ডনীয় অপরাধ। কপি করা যাবে না!!