সোমবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১২:১৬ অপরাহ্ন
নিউজ ফ্লাশ
পঞ্চগড়ে মন্দিরে যাওয়ার পথে নৌকাডুবিতে শিশুসহ ২৪ জনের মৃত্যু হিজাব ইস্যুতে উত্তাল ইরান: নারীসহ ৭০০ বিক্ষোভকারী গ্রেফতার, নিহত ৩৫ শারদীয় দুর্গাপূজা: হিলি ইমিগ্রেশন দিয়ে যাত্রী পারাপার বেড়েছে ফেসবুকে ইসলাম ধর্ম নিয়ে অবমাননাকর মন্তব্য, বেরোবি শিক্ষার্থী আটক আগামী পহেলা ডিসেম্বর বিভাগীয় লেখক পরিষদ রংপুরের এক যুগ পূতি নগরজুড়ে চ্যাম্পিয়নদের ছাদ খোলা বাসে বিজয় শোভাযাত্রা খোলা বাসে বিলবোর্ড মাথায় লেগে আহত ফুটবলার ঋতুপর্ণার মাথায় দুই সেলাই এই ট্রফি আমাদের দেশের জনগণের জন্য রংপুরে জাপানি নাগরিক কুনিও হোশি হত্যা: ৪ জঙ্গির মৃত্যুদণ্ড বহাল দিনাজপুর বোর্ডের এসএসসি পরীক্ষার চার বিষয়ের পরীক্ষা স্থগিত

পিকআপ চাপায় নিহত পাঁচ ভাইয়ের সঙ্গী হলেন রক্তিম সুশীলও

এপ্লাস অনলাইন
  • আপডেট সময় : মঙ্গলবার, ২২ ফেব্রুয়ারী, ২০২২
চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কে পিকআপ চাপায় নিহত পাঁচ ভাইয়ের সঙ্গী হলেন রক্তিম সুশীলও। মঙ্গলবার (২২ ফেব্রুয়ারি) সকালে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালের আইসিইউতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান তিনি।
গত ৮ ফেব্রুয়ারি সড়কের চকরিয়া উপজেলার মালুমঘাটা বনবিভাগের নার্সারির সামনে চাঞ্চল্যকর সড়ক দুর্ঘটনাটি ঘটে। এতে ঘটনাস্থলে নিহত হন চার ভাই ও পরে চমেক হাসপাতালে আরেক ভাইয়ের মৃত্যু ঘটে।
এরা হলেন- অনুপম সুশীল (৪৬), নিরুপম সুশীল (৪০), দীপক সুশীল (৩৫), চম্পক সুশীল (৩০) ও স্মরণ সুশীল (২৯)। এছাড়া রক্তিম সুশীল ও তাদের এক বোন হিরা শীল গুরুতর আহত হন। তিনি মালুমঘাটা খ্রিষ্টান হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন এখনো। তার এক পা কেটে ফেলা হয়েছে।
আর রক্তিম সুশীলের মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন চমেক হাসপাতালের আইসিইউ বিভাগের চিকিৎসক ডা. হারুনুর রশিদ। তিনি বলেন, সকাল ১০টার দিকে রক্তিম সুশীলের মৃত্যু হয়েছে। আমরা সর্বোচ্চ চেষ্টা করেও তাকে বাঁচাতে পারলাম না।
রক্তিমের শ্যালক অনুপম শর্মা বলেন, জামাইবাবু মারা গেছেন। এখন আমার বোন ও ভাগ্নের কী হবে? তিনি জানান, গত ৮ ফেব্রুয়ারি ভোরে কক্সবাজারের চকরিয়া উপজেলার মালুমঘাটা বনবিভাগের নার্সারির সামনে রাস্তার পাশে দাঁড়ানো অবস্থায় ৭ ভাই ও দুই বোনকে চাপা দেয় তরকারিবাহী একটি পিকআপ।
এ সময় তারা সদ্য প্রয়াত বাবা সুরেশ চন্দ্র সুশীলের শ্রাদ্ধানুষ্ঠানে মন্দিরে পূজা দিতে গিয়েছিল। শ্রাদ্ধানুষ্ঠান শেষে ফেরার পথে পিকআপটি সামনে এবং পেছনে গিয়ে একাধিকবার তাদের চাপা দেয়। এতে ঘটনাস্থলে চার ভাই নিহত হয়। ওইদিন বিকেলে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান আরেক ভাই।
এ ঘটনায় অক্ষত অবস্থায় বেঁচে যান সুরেশ চন্দ্র সুশীলের মেয়ে মুন্নী শীল। আহত হন আরও দুই ছেলে ও এক মেয়ে। নিহতদের বোন হীরা শীল মালুমঘাট খ্রিষ্টান হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। তার একটি পা কেটে ফেলা হয়েছে।
রক্তিমের শ্যালক অনুপম শর্মা আরও বলেন, দুর্ঘটনার দিন আহত রক্তিম সুশীলের চমেক হাসপাতালে আইসিইউ সাপোর্ট প্রয়োজন হয়। সেখানে না পেয়ে বেসরকারি ম্যাক্স হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে ব্যয় বহন করা আমাদের পক্ষে সম্ভব হচ্ছিল না। তাই ম্যাক্সে একদিন রেখে জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যাই। জেনারেল হাসপাতালে কয়েকদিন চিকিৎসা চলে। পরে ১৩ ফেব্রুয়ারি আবার তাকে চমেক হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে তার মৃত্যু ঘটে।
এ ঘটনায় পিকআপ চালক সাহিদুল ইসলামকে ১১ ফেব্রুয়ারি রাজধানীর মোহাম্মদপুর এলাকা থেকে আটক করে র‌্যাব। তাকে আটকের পর র‌্যাব জানায়, ঘটনার দিন রাস্তায় অতিরিক্ত কুয়াশা থাকা সত্ত্বেও চালক দ্রুত কক্সবাজার পৌঁছে সবজি ডেলিভারি দিতে বেপরোয়াভাবে পিকআপটি চালাচ্ছিলেন।
ঘন কুয়াশা ও অতিরিক্ত গতির কারণে মালুমঘাট বাজারের নার্সারি গেটের সামনে রাস্তা পার হওয়ার জন্য অপেক্ষারতদের দূর থেকে খেয়াল করেননি তিনি। গাড়ি অতিরিক্ত গতিতে থাকায় কাছাকাছি এসে লক্ষ্য করলেও নিয়ন্ত্রণ করতে পারেননি। এতে এই হৃদয়বিদারক দুর্ঘটনা ঘটে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ

এ প্লাস ডিজিকম সার্ভিস

© All rights reserved © 2020 Aplusnews.Live
Design & Development BY Hostitbd.Com

অনুমতি ছাড়া নিউজ কপি দন্ডনীয় অপরাধ। কপি করা যাবে না!!