শনিবার, ০১ অক্টোবর ২০২২, ০৮:৪০ পূর্বাহ্ন

বিষাদে নিউজিল্যান্ড, টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ শিরোপা জয় উৎসবে অস্ট্রেলিয়া

এপ্লাস অনলাইন
  • আপডেট সময় : সোমবার, ১৫ নভেম্বর, ২০২১

 

উত্তেজনার বারুদ হতে পারল না! দুই বছর পর আরও একটা বিশ্বকাপ ফাইনালে এসে হৃদয়ে রক্তক্ষরণ হলো কিউইদের। কনফেত্তি আর আতশবাজিতে যখন দুবাই স্টেডিয়াম উৎসবে মুখর, প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপ ট্রফি নিয়ে যখন উড়ছেন অ্যারন ফিঞ্চরা, তখন উইলিয়ামসনরা এক কোণায় দাঁড়িয়ে নিশ্চয়ই ভাবছিলেন ক্রিকেট এতো নিষ্ঠুর কেন?

 

টিম সাউদির বলে গ্লেন ম্যাক্সওয়েলের রিভার্স সুইপের পর যেন চোখের পলকে ঘটে গেল অনেক কিছু। শর্ট থার্ড ম্যানের ফিল্ডারকে বল পেরিয়ে যেতেই দৌড় থামিয়ে সতীর্থদের দিকে ছুটলেন মিচেল মার্শ। বল সীমানা দড়ি ছুঁতে না ছুঁতে দৌড়ে মাঠে ঢুকে গেলেন অস্ট্রেলিয়ার দুই ক্রিকেটার, পিছু নিলেন বাকিরা। শুরু হয়ে গেল প্রথম টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ শিরোপা জয়ের উৎসব। অন্য দল যেন ডুবে আঁধারে। খুব কাছে গিয়েও আবার স্বপ্ন ভাঙার বিষাদে ধীর পায়ে মাঠ ছাড়ল কেন উইলিয়ামসন ও তার সতীর্থরা।

দুবাই ইন্টারন্যাশনাল স্টেডিয়ামে রোববার ৮ উইকেটে জিতেছে অস্ট্রেলিয়া। নিউ জিল্যান্ডের ১৭২ রান ছাড়িয়ে গেছে ৭ বল বাকি থাকতে। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ফাইনালে এটাই সর্বোচ্চ রান তাড়া করে জয়।

শুরু থেকেই উইকেটে ছিল ব্যাটসম্যানদের জন্য সহায়তা। সময় গড়ানোর সঙ্গে ব্যাটিং হয়ে যায় আরও সহজ। কন্ডিশন কাজে লাগিয়ে দলকে জয়ের বন্দরে নিয়ে যান মার্শ। ৫০ বলে ৪টি ছক্কা ও ৬টি চারে ৭৭ রানে অপরাজিত এই টপ অর্ডার ব্যাটসম্যানকে দারুণ সঙ্গ দেন ডেডিড ওয়ার্নার ও ম্যাক্সওয়েল।

বিশ্বকাপ ফাইনালে সর্বোচ্চ রান করেও খুব একটা লড়াই করতে পারেনি নিউ জিল্যান্ড। তাদের সাদামাটা বোলিংয়ের বিপরীতে মার্শ, ওয়ার্নার, ম্যাক্সওয়েলদের দারুণ ব্যাটিংয়ে পার্থক্য গড়ে যায় অনায়াসে। পুরোটা সময়ই কিউই বোলারদের ওপর ছড়ি ঘুরিয়ে গেছেন তারা।

দুবাইয়ে টস হারা মানেই যেন ম্যাচ হেরে যাওয়া। এই আসরেই যেমন ফাইনালের আগে এখানে প্রথমে ব্যাট করা দল জিততে পারে কেবল একটি ম্যাচ; স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে জিতেছিল নিউ জিল্যান্ডই। এর পুনরাবৃত্তি করা কতটা কঠিন জেনেই টস হেরে ব্যাটিং পাওয়ার পর শুরু থেকে দ্রুত রান তোলার চেষ্টা করে দলটি।

রানের জন্য হাঁসফাঁস করা গাপটিলের বিদায়ে ভাঙে ৪৫ বল স্থায়ী ৪৮ রানের জুটি। লেগ স্পিনার অ্যাডাম জ্যাম্পাকে স্লগ করে ছক্কায় ওড়ানোর চেষ্টায় ডিপ মিডউইকেটে ধরা পড়েন এই ওপেনার। স্বভাববিরুদ্ধ ব্যাটিংয়ে ৩৫ বলে তিন চারে করেন কেবল ২৮ রান।

২১ বলে ২১ রানে জীবন পাওয়ার পর ডানা মেলেন ডানহাতি এই ব্যাটসম্যান। স্টার্ককে পরের দুই বলে মারেন দুটি চার। এর শেষটি ছিল আবার ‘নো’ বল। ওভার থেকে আসে ১৯ রান।

এক ওভার পর ম্যাক্সওয়েলকে দুই ছক্কা মারেন উইলিয়ামসন। দ্বিতীয় ছক্কায় ৩২ বলে ফিফটিতে পৌঁছান তিনি। সঙ্গে গড়েন বিশ্বকাপের ফাইনালে দ্রুততম ফিফটির রেকর্ড।

গ্লেন ফিলিপসের সঙ্গে উইলিয়ামসের জুটিতে রান আসতে থাকে দ্রুত। ২৬ বলে তাদের জুটির রান স্পর্শ করে পঞ্চাশ। ষোড়শ ওভারে স্টার্ককে চারটি চারের সঙ্গে একটি ছক্কায় ২২ রান নেন নিউ জিল্যান্ড অধিনায়ক।

শেষ দিকে জিমি নিশাম ও টিম সাইফার্টের ব্যাটে ১৭২ পর্যন্ত যায় নিউ জিল্যান্ডের সংগ্রহ। বিশ্বকাপের ফাইনালে এটাই সর্বোচ্চ রান। রান তাড়ায় যা ভেঙে দেয় অস্ট্রেলিয়া।

রান তাড়ায় শুরুটা ভালো হয়নি অস্ট্রেলিয়ার। শুরুতে উইকেট হারানোর কোনো প্রভাব অবশ্য পড়তে দেননি ওয়ার্নার ও মার্শ। অ্যাডাম মিল্নকে ছক্কায় ওড়ানোর পর টানা দুই চার মারেন মার্শ। প্রথম তিন বলে ১৪ রান করা ডানহাতি এই ব্যাটসম্যান এগোতে থাকেন দারুণ গতিতে। যোগ্য সঙ্গ দেন ওয়ার্নার। দ্রুত জমে যায় জুটি।

বড় জুটির সঙ্গী ফিরে গেলেও থামেননি মার্শ। সোধিকে ছক্কা মেরে ৩১ বলে স্পর্শ করেন ফিফটি। ভেঙে দেন প্রথম ইনিংসে উইলিয়ামসনের গড়া ফাইনালে দ্রুততম ফিফটির রেকর্ড।

ম্যাক্সওয়েলের সঙ্গে মার্শের জুটি পঞ্চাশ স্পর্শ করে কেবল ২৬ বলেই। এরপরও একই গতিতে এগিয়ে গিয়ে ১৯তম ওভারেই দলকে জয়ের বন্দরে নিয়ে যান দুই ব্যাটসম্যান। ৭৭ রান করে ম্যাচ সেরা মার্শ। তার সঙ্গে ৬৬ রানের জুটিতে ম্যাক্সওয়েলের অবদান ১৮ বলে ২৮।

 

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

নিউ জিল্যান্ড: ২০ ওভারে ১৭২/৪ (গাপটিল ২৮, মিচেল ১১, উইলিয়ামসন ৮৫, ফিলিপস ১৮, নিশাম ১৩*, সাইফার্ট ৮*; স্টার্ক ৪-০-৬০-০, হেইজেলউড ৪-০-১৬-৩, ম্যাক্সওয়েল ৩-০-২৮-০, কামিন্স ৪-০-২৭-০, জ্যাম্পা ৪-০-২৬-১, মার্শ ১-০-১১-০)।

অস্ট্রেলিয়া: ১৮.৫ ওভারে ১৭৩/২ (ওয়ার্নার ৫৮, ফিঞ্চ ৫, মার্শ ৭৭*, ম্যাক্সওয়েল ২৮*; বোল্ট ৪-০-১৮-২, সাউদি ৩.৫-০-৪৩-০, মিল্ন ৪-০-৩০-০, সোধি ৩-০-৪০-০, স্যান্টনার ৩-০-২৩-০, নিশাম ১-০-১৫-০)।

ফল: অস্ট্রেলিয়া ৮ উইকেটে জয়ী

ম্যান অব দা ম্যাচ: মিচেল মার্শ

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ

এ প্লাস ডিজিকম সার্ভিস

© All rights reserved © 2020 Aplusnews.Live
Design & Development BY Hostitbd.Com

অনুমতি ছাড়া নিউজ কপি দন্ডনীয় অপরাধ। কপি করা যাবে না!!