বুধবার, ২০ অক্টোবর ২০২১, ০৩:৪৫ পূর্বাহ্ন
নিউজ ফ্লাশ
ওমানকে হারিয়ে বিশ্বকাপে ২য় রাউন্ডের খেলার আশা বাঁচিয়ে রাখলো বাংলাদেশ টিকা দেওয়ার জন্য স্কুলের শিক্ষার্থীদের তালিকা করা হচ্ছে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী বাংলাদেশকে একটি অসম্প্রদায়িক রাষ্ট্র উল্লেখ করে ধর্ম নিয়ে বাড়াবাড়ি বন্ধের আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর রংপুরের পীরগঞ্জের হামলায় জড়িতরা কেউ পার পাবে না: তথ্যমন্ত্রী প্রয়াত রাষ্ট্রপতি এরশাদকে কটুক্তি করার প্রতিবাদে রংপুরে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ রংপুরে ফেসবুকে পোস্ট দেয়াকে কেন্দ্র করে সহিংস ঘটনার পোস্টদাতা পরিতোষের স্বীকারোক্তি,কারাগারে প্রেরণ রংপুরের পীরগঞ্জে হিন্দু জেলে পল্লীতে হামলা পূর্বপরিকল্পিত: স্পীকার শিরীন শারমিন পীরগঞ্জে ধর্মান্ধ সন্ত্রাসী গোষ্ঠী এসব হামলা চালিয়েছে: রংপুরে ইনু রংপুরের পীরগঞ্জে ‘ধর্ম অবমাননাকর’ পোস্ট দেওয়া সেই পরিতোষ গ্রেফতার,আইসিটি আইনে মামলা জেলা পর্যায়ে রচনা প্রতিযোগিতায় শিবরাম স্মৃতি প্রি-ক্যাডেট স্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষার্থীর প্রথম পুরষ্কার গ্রহণ

সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া এভারকেয়ার হাসপাতালে ভর্তি

প্রতিবেদকের নাম:
  • আপডেট সময় : মঙ্গলবার, ১২ অক্টোবর, ২০২১
স্বাস্থ্যের একাধিক পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য বিএনপি চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে এভারকেয়ার হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
মঙ্গলবার (১২ অক্টোবর) বিকেল চারটার দিকে তাকে হাসপাতলে নেওয়া হয়। সেখানে চিকিৎসকদের পরামর্শে খালেদা জিয়ার সিটিস্ক্র্যান ও ইকো টেস্ট করানো হয়েছে। আজই এসবের রেজাল্ট আসবে। এছাড়া আরও কয়েকটি টেস্ট করোনোর কথা রয়েছে।
চিকিৎসক জানান, খালেদা জিয়ার শরীরে জ্বর আছে। জ্বরে মাত্রা ১০২ ডিগ্রী ফারেনহাইট। জ্বর দ্রুত না কমার কারণ খুঁজছে মেডিকেল বোর্ড। তার পুরো স্বাস্থের সবশেষ পরিস্থিতি নিয়ে এক দফা বৈঠকও করেছে বোর্ড। তবে খালেদা জিয়া হাসপাতালে থেকে চিকিৎসা নিতে নারাজ। তাকে কয়েকটি স্বাস্থ্য পরীক্ষার গুরুত্ব বুঝিয়ে হাসপাতালে রাখার চেষ্টা করছেন চিকিৎসকেরা।
এভার কেয়ার হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, খালেদা জিয়ার ব্যক্তিগত চিকিৎসক ও হাসপাতাল চিকিৎসক মিলে একটি টিম তার চিকিৎসায় নিয়োজিত আছেন। যার নেতৃত্ব দিচ্ছেন হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক শাহাবুদ্দিন তালুকদার। হাসপাতালের ভিআইপি ওয়ার্ডের একটি বেড বরাদ্দ আছে বিএনপি প্রধানের জন্য। তার সার্বক্ষণিক সেবায় নিয়োজিত আছেন চিকিৎসক ও বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান এজেডএম জাহিদ হোসেন, চিকিৎসক আল মামুন, মেডিকেল টেকনোলজিস্ট মো. সবুজ, ব্যক্তিগত স্টাফ রূপা ও গৃহপরিচারিকা ফাতেমা।
চিকিৎসক এজেডএম জাহিদ হোসেন জানান, বেশ কিছু দিন ধরেই অসুস্থ বোধ করছেন খালেদা জিয়া। শরীরের তাপমাত্রা কিছুটা বেশি। সে জন্য মেডিক্যাল চেকআপের জন্য ম্যাডামকে বসুন্ধরায় এভারকেয়ার হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে।
গত ১১ এপ্রিল খালেদা জিয়ার করোনার রিপোর্ট পজিটিভ আসে। শুরুতে গুলশানের বাসভবন ফিরোজায় চিকিৎসা চললেও ১৫ এপ্রিল হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানে সিটি স্ক্যান করানো হয় খালেদা জিয়ার। এরপর ফিরিয়ে আনা হয় গুলশানের বাসভবনে। অবস্থার অবনতি হলে ২৭ এপ্রিল একই হাসপাতালে ভর্তি করা হয় বিএনপি প্রধানকে। ৩ মে শ্বাসকষ্ট অনুভব করলে খালেদা জিয়াকে কেবিন থেকে সিসিইউতে স্থানান্তর করা হয়। বিএনপি থেকে খালেদা জিয়ার করোনামুক্তির খবর দেয়া হয় ৯ মে।
তবে সিসিইউতে থাকা অবস্থায় হঠাৎ জ্বরে আক্রান্ত হন খালেদা জিয়া। ৩ জুন চিকিৎসকদের পরামর্শে তাকে কেবিন ফিরিয়ে আনা হয়। এর ১৬ দিন পর বাসায় ফেরেন সাবেক এই প্রধানমন্ত্রী। এভার কেয়ার হাসপাতালে চিকিৎসা শেষে বাসভবন ফিরোজায় আসার পর দুইবার বাসা থেকে বের হয়ে করোনার ভ্যাকসিন নেন খালেদা জিয়া। তবে স্বাস্থ্য চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে নেওয়ার প্রয়োজন পড়লেও যাননি তিনি।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই রকম আরো সংবাদ

এ প্লাস ডিজিকম সার্ভিস

© All rights reserved © 2020 Aplusnews.Live
Design & Development BY Hostitbd.Com